April 20, 2024, 1:18 pm
ব্রেকিং নিউজ

ঈদে যাত্রীসেবা দিতে সৈয়দপুরে চলছে ট্রেনের কোচ মেরামতের কাজ

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম Thursday, March 21, 2024
  • 41 দেখা হয়েছে

নীলফামারী প্রতিনিধি
অন্যান্য বছরের মতো এবারের ঈদেও ঘরমুখো যাত্রীদের সেবা দিতে দেশের বৃহত্তম রেলকারখানা সৈয়দপুরে চলছে কোচ মেরামতের কাজ। ঈদের আগে ও পরে রেলপথের বিভিন্ন বহরে যুক্ত হবে চলাচল উপযোগী এসব রেল কোচ।

সড়ক পথের চেয়ে নিরাপদ ভ্রমণ হিসেবে রেলপথকে বেশি পছন্দ করেন যাত্রীরা। তার ওপর ঈদকে কেন্দ্র করে বাড়তি চাপ সামলাতে হয় রেলওয়েকে। উৎসব ঘিরে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনে নিয়মিত ট্রেনের বহরে যুক্ত করা হয় অতিরিক্ত কোচ (বগি)। পুরোনো ওইসব বগি মেরামত করে যুক্ত করার কাজ চলছে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা। জনবল সংকটের মাঝেও নির্ধারিত সময়ের চেয়ে অতিরিক্ত সময় দিয়ে দিনরাত পরিশ্রম করে মেরামত কাজ করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সূত্র জানায়, পবিত্র ঈদুল ফিতরে বিভিন্ন ট্রেনে সংযোজন করা হবে প্রায় ২০০ শতাধিক কোচ। ফলে পুরাতন কোচ মেরামতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারখানার সংশ্লিষ্টরা। প্রতিমাসে স্বাভাবিক সময়ে ৩০টি কোচ মেরামত করা হয়। কিন্ত ঈদের আগে ও পরে পাঁচদিন স্পেশাল ট্রেন চলাচল করবে।
সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় ৫১ কর্মদিবসে ১১০টি যাত্রী কোচ ও ১৬টি পাওয়ার কোচ মেরামত করা হচ্ছে। কারখানায় কর্মরত শ্রমিক আব্দুল আউয়াল জানান, বর্তমানে কারখানায় পাঁচজন শ্রমিকের কাজ একজন করছি। রেল যেহেতু সেবামূলক প্রতিষ্ঠান তাই কষ্ট হলেও কাজ করে যাচ্ছি। আমরা অচল কোচগুলো সচল করে তুলছি। প্রতিবছর রেলওয়ে কারখানায় ঈদে শ্রমিক-কর্মচারীরা অতিরিক্ত কাজ করে থাকেন।

ক্যারেজ শপের ইনচার্জ উর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী মমিনুল ইসলাম বলেন, ঈদে কারখানায় কাজের চাপ বেড়ে যায়। উপরের নির্দেশনা অনুযায়ী অতিরিক্ত কোচ মেরামতের কাজ চলে এখানে। এবার ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে আমরা ১২৬টি কোচ মেরামত করছি। এরমধ্যে ট্রেনে বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য ১৬টি পাওয়ার কারও রয়েছে। এ পর্যন্ত আমরা ৭৪টি কোচ রেলের ট্রাফিক বিভাগে হস্তান্তর করেছি। বাকিগুলো এরই মধ্যে প্রস্তত হবে।

এ ব্যাপারে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) সাদেকুর রহমান জানান, ১১০টি কোচ মেরামতের কাজ আমরা হাতে নিয়েছি। ইতিমধ্যে ৭৪টি কোচ মেরামত শেষে রেলের ট্রাফিক বিভাগে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি কোচগুলো ধীরে ধীরে মেরামত করা হচ্ছে। কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীদের আন্তরিকতায় এসব কোচ মেরামত কাজ চলছে।

ঈদ যাত্রায় ১৬টি স্পেশাল ট্রেনে এসব মেরামত কোচ সংযোজন হলে প্রতিদিন কমপক্ষে ২২ হাজার অতিরিক্ত মানুষ যাত্রা করতে পারবেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

১৮৭০ সালে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানাটি ১১০ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠা করা হয়। প্রথমে এই কারখানায় দুই শিফটে প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক-কর্মচারি কাজ করলেও গোল্ডেন হ্যান্ডশেক ও অবসরের কারণে বর্তমানে কারখানার ২৯টি শপে মাত্র ৮০৭ জন কর্মরত রয়েছেন। আর রেলওয়ে কারখানায় মঞ্জুরি পদ দুইহাজার ৮৬৯ জন। যা দীর্ঘদিনেও পূরণ করা হচ্ছে না। সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ২৯টি শপ (উপ-কারখানা) এখন কর্মমুখর। এ কারখানায় কোচ (যাত্রীবাহী) ও ওয়াগন (মালবাহী) মেরামত ছাড়াও ১২ হাজার রকম যন্ত্রাংশ তৈরি হয়ে থাকে। এসব যন্ত্রাংশ ব্যবহার হয় রেলওয়ে ইঞ্জিন ( লোকোমোটিভ) ও কোচে।

শেয়ার করুন
এই ধরনের আরও খবর...
themesba-lates1749691102